২৬০০ ডোজ টিকা চুরির নেপথ্যে সংসদ সদস্য ও তার ভাই!

0
309

চট্টগ্রামের পটিয়া উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে করো’নাভাই’রাসের দুই হাজার ৬০০ ডোজ টিকা চু’রির নেপথ্যে উঠে আসছে স্থানীয় সংসদ সদস্য হুইপ সামশুল হক চৌধুরী এবং তাঁর ভাই ফজলুল হক মহব্বত-এর নাম।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, হুইপ সামশুল হক মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট রবিউল হোসেনকে দিয়ে হাসপাতাল থেকে টিকা সরিয়ে নেন। এরপর মহব্বত গত ৩০ ও ৩১ জুলাই টিকার ডোজগুলো বিক্রি করেন। ডোজপ্রতি দাম নেন ৫০০ থেকে তিন হাজার টাকা। এরপর হুইপ-এর বাড়ির পাশে অ’বৈধ টিকাকেন্দ্র বসিয়ে অনিবন্ধিত ব্যক্তিদের শরীরে ওই টিকা পুশ করা হয়।

রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্তকে বৃদ্ধাঙ্গু’লি দেখিয়ে নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে এভাবে সরকারি টিকা বিক্রি করে যেনতেনভাবে মানুষের শরীরে পুশ করার ঘটনায় বিস্ময় প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা। এই ঘটনাকে দ’ণ্ডনীয় অ’প’রাধ আখ্যা দিয়ে তাঁরা বলেছেন, অস্বীকৃত ও অগ্রহণযোগ্য প্রক্রিয়ায় মানবদেহে টিকা পুশ করায় বিপুলসংখ্যক মানুষ ভ’য়াবহ স্বাস্থ্যঝুঁ’কিতে পড়েছেন। দায়ী ব্যক্তিদের শা’স্তি নিশ্চিত করা না হলে টিকা নিয়ে করো’না মহামা’রির মধ্যেই দেশজুড়ে নৈরাজ্য ও বিশৃঙ্খলা দেখা দেবে বলে তাঁদের আশ’ঙ্কা।

পটিয়া উপজে’লার স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মক’র্তা ডা. সব্যসাচী নাথ জানান, হাসপাতাল থেকে করো’নার টিকা বের হয়ে যাওয়ার ঘটনাটি জানতেন না তিনি। গণমাধ্যমে খবর আসার পর মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট মো. রবিউল হোসেনকে শোকজ করেছেন। চট্টগ্রামের বিভাগীয় পরিচালকের (স্বাস্থ্য) কার্যালয় থেকে গঠন করা তিন সদস্যের ত’দন্ত কমিটির কাছে রবিউল স্বীকার করে বলেছেন, হুইপ সামশুল হক চৌধুরী’র নির্দেশে এই টিকা হাসপাতাল থেকে কাউকে না জানিয়ে তিনি নিয়ে গিয়েছিলেন।

বাড়ির পাশে অ’বৈধ টিকাকেন্দ্র নিয়ে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর নানান সমালোচনা ও তোপের মুখে এই বিষয়ে কিছু জানেন না বলে দাবি করেন হুইপ।

বিষয়টি নিয়ে চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি জানান, সেখানে টিকা কার্যক্রম বন্ধ হয়েছে। ত’দন্ত কমিটি প্রতিবেদন দেওয়ার পর জ’ড়িতদের বি’রুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here