ভোলা ও চট্রগ্রাম রুটে তোফা এন্টারপ্রাইজ বাসে যাত্রী হয়রানির অভিযোগ

0
68
স্টাফ রিপোর্টারঃ তোফা পরিবহন চট্রগ্রাম থেকে ভোলায় বাড়িতে আসার সময় হয়রানীর শিকার হয়েছেন ভোলার চরফ্যাসনের হাসান। সে তার বড় ভাইয়ের বাসায় থেকে গত ২২ মার্চ সন্ধ্যা  সাড়ে ৭ টায় চট্রগ্রাম থেকে ভোলার উদ্দেশ্য রওনা হওয়ার সময় নানা বিড়ম্বনার শিকার হন। হাসান জানান, তার মা সহ চট্টগ্রাম থেকে ভোলার যাওয়ার উদ্দেশ্যে তোফা এন্টারপ্রাইজ পরিববহনের চট্টগ্রাম কাপ্তাই রাস্তার মাথা কাউন্টার থেকে টিকিট ক্রয় করেন।
পরিবহনটি টিকিটের নির্ধারিত মূল্য ৫শ’ টাকার পরিবর্তে ৬শ’ টাকা করে নেয়।
তারা ওই দিন সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টার সময় রাস্তার মাথা কাউন্টার থেকে বাসে ওঠেন। যাত্রার জন্য নির্ধারিত তোফা এন্টারপ্রাইজ পরিবহনের বাসটি ছিল পুরোপুরি নোংরা এবং অধিকাংশ সিট ছিল ভাঙা। এবং বাসের সিট গুলাতে পুরাপুরী যাত্রী না নিয়ে আপেলের কার্টুন সহ রঙের ডিব্বা ও বিভিন্ন ধরনের মালামাল নেন তারা।
হাসান বলেন, বাসের চালক মো.সোহাগ গবীর রাতে যখন ব্রেক করছিলেন, আমরা তখন বাসের মেঝেতে পড়ে যাচ্ছিলাম। রাত ১২ টায় বাসটি অলংকার কাউন্টারে এসে পৌঁছে।
এ সময় বাসটির চালক সুপারভাইজার শ্যামল ও হেলপারের মাধ্যমে জানালেন, বাসটিতে একটি সমস্যা দেখা দিয়েছে। কিছুক্ষণ তারা বাস স্টার্ট দিতে চেষ্টা করেও ব্যর্থ হলেন। পরে আমিসহ কিছু যাত্রী নেমে বাসটি ধাক্কা দেওয়ার পরে স্টার্ট হয়, এরপর সিদ্ধান্ত নিলাম যে, আমরা বাসটিতে করে ভোলায় যাবো না। কারণ, এতো রাতে মহাসড়কের কোথাও দুর্ঘটনা ঘটলে বা বাসটি থেমে গেলে আমরা বড় ধরনের সমস্যায় পড়ে যাবো। হঠাৎ আমরা রাস্তার মাথা কাউন্টারে অভিযোগ জানালাম। ওই কাউন্টারে কর্মরতরা নাজিমের বাবা (অজ্ঞাত) তিনি জানালেন, তারা এ বিষয়ে কিছু জানেন না।
ভুক্তভোগী যাত্রী হাসান আরও বলেন আমাদের প্রশ্ন হচ্ছে, রাস্তার মাথা কাউন্টার থেকে বাসটি পরীক্ষা করে বের করা হলো না কেন? এটি শুধু সেই রাতের ঘটনাই নয়। বেশিরভাগ রাতের ট্রিপেই তারা তাদের অন্য রুটের সার্ভিস কোচ দিয়ে যাত্রী বহন করে থাকে বলেও অভিযোগ আছে তাদের। এবং ভোলায় এসে বিভিন্ন জায়গায় মালাামা বাস থেকে নামান তোফা এন্টারপ্রাইজ পরিবহন কর্তৃপক্ষের কাছে হাসান এ ধরনের যাত্রী হয়রানি বন্ধের অনুরোধ জানিয়েছেন। তিনি বলেন, তোফা পরিবহন রাতের ট্রিপে ভালো ও নতুন বাস দিলেও ভোলার রুটের যাত্রীদের তারা অবহেলা করে। তারা এ রুটের সহজ-সরল যাত্রীদের অব্যাহতভাবে হয়রানি করে আসছে। শেষ পর্যন্ত পরদিন ২৩ মার্চ সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় তারা ভোলা চরফ্যাসন এসে পৌঁছান বলে জানান।
হাসান আরও জানান, ও-ই বাসের ড্রাইভার মো. সোহাগ ভোলায় আসা অচেনা এক মহিলার সাথে অনৈতিক কর্মকাণ্ড করেছেন, ফেরী কনকচাঁপাতে মালটানা ট্রাকের নিচে, এ ধরনের কর্মকাণ্ড রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে।
এ বিষয় ভোলা ইলিশা ফেরী ঘাটের দায়িত্ব রত এক পুলিশের সাথে কথা বললে তিনি জানান, আমরা খুব শীগ্রই এসব বাস গুলাতে অভিযান পরিচালনা করবো।
Attachments area

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here