ফিরে দেখা একুশ: বাংলা ও বাঙালির গর্বের দিন

0
128

সোহাইল আহমেদ, জেলা প্রতিনিধি:

২১শে ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের নাগরিকদের তথা সমগ্র বাঙালি জাতীর কাছে একটি গৌরবোজ্জ্বল দিন। বাংলাদেশে এই দিনটি ‘শহীদ দিবস’ হিসাবেও পরিচিত। তবে পৃথিবীর যে কোনও প্রান্তে যত বাঙালি আছেন, তাঁদের সকলের কাছে দিনটি অধিক গুরুত্বপূর্ণ ‘মাতৃভাষা দিবস’ হিসাবে। বাঙালিদের নিজের মাতৃভাষাকে জাতীয় তথা রাষ্ট্রীয় ভাষার স্বীকৃতি দেওয়ার দাবিতে ১৯৫২ সালের এই দিনে পরাধীন বাংলাদেশে হাজার হাজার ছাত্র পুলিশের গুলি উপেক্ষা করে আন্দোলনে পথে নেমেছিলেন। আন্দোলনরত ছাত্রদের ওপর পাকিস্তানী পুলিশের নিষ্ঠুর গুলিবর্ষণে বেশ কয়েকজন ছাত্র শহীদ হন। তাই এই দিনটি বাঙালিদের কাছে ‘শহীদ দিবস।

 

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বাঞ্ছারামপুর উপজেলায় আজ ২১শে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন বাঞ্ছারামপুর উপজেলা প্রশাসন,উপজেলা প্রেস ক্লাব,আ.লীগ,যুবলীগ,ছাত্রলীগ,কৃষকলীগ,সেচ্ছাসেবকলীগ,শ্রমিকলীগ,মহিলা আ.লীগ,বাঞ্ছারামপুর মডেল থানা,রাত ১২টা ১ মিনিটে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা শহীদ মিনারে পুষ্প অর্পন করেন,উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো:শরিফুল ইসলাম, উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মিন্টু রঞ্জন সাহা, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জলি আমির,বাঞ্ছারামপু আ.লীগ প্রচার সম্পাদক কাজী জাদিদ-আল-রহমান (জনি),যুবলীগ সভাপতি সাইদুল ইসলাম ভূইয়া (বকুল),পৌর যুবলীগ সভাপতি কামাল আহমেদ, উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি জুয়েল আহমেদ,সধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন,পৌর ছাত্রলীগ সভাপতি সোহেল আহমেদ, উপজেলা প্রেস ক্লাবের পক্ষে মোঃ আশিকুর রহমান দৈনিক সরেজমিন, মোঃ নাছির উদ্দিন দৈনিক কালজয়ী,মোল্লা মোঃ নাসির হোসেন (দুলাল) দৈনিক ভোরের দর্পণ, মোঃ আলমগীর হোসেন, দৈনিক দেশ জনতা,সোহাইল আহমেদ, দৈনিক বিপ্লবী বাংলাদেশ, আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আ.লীগ সভাপতি সাবেক যুগ্ম সচিব সিরাজুল ইসলাম,বাঞ্ছারামপুর মডেল থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ সালাহ্ উদ্দিন চৌধুরী, আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যবৃন্দ।

 

বাংলার মুক্তিযোদ্ধাদের নির্ভিক সশস্ত্র সংগ্রামের হাত ধরে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ পাকিস্তানের কাছ থেকে নিজেদের স্বাধিনতা ছিনিয়ে নেয় বালাদেশ।স্বাধীনতা লাভের পর দেশের রাষ্ট্রভাষা হিসাবে বাংলা ভাষাকে স্বীকৃতি দেওয়ার তোড়জোড় শুরু হয়ে যায়। এর পর ১৯৮৭ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের জাতীয় সংসদে ‘বাংলা ভাষা প্রচলন বিল’ পাশ হয়। বিলটি কার্যকর হয় ১৯৮৭ সালের ৮ মার্চ থেকে। ১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর ইউনেস্কোর প্যারিস অধিবেশনে ২১শে ফেব্রুয়ারি দিনটিকে ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করা হয়। আর তার পর থেকেই পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে নানা বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে, শ্রদ্ধার সঙ্গে পালিত হচ্ছে এই ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’, যা যে কোনও বাঙালির কাছেই অত্যন্ত গর্বের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here