পুলিশের সাজানো মামলা থেকে অব্যাহতি পেলেন সাংবাদিক মাসুদুর রহমান

0
206

ইসমাইল হোসেন রাশেদ, সরিষাবাড়ী (জামালপুর) প্রতিনিধিঃ-
পুলিশের সাজানো মামলা থেকে অব্যাহতি পেলেন সাংবাদিক মাসুদুর রহমান। সোমবার জামালপুর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এর ৪র্থ আদালতের বিচারিক হাকিম সোলায়মান কবীর এ রায় ঘোষনা করেন।
মাসুদুর রহমান মুভি বাংলা টিভিতে স্টাফ রিপোর্টার হিসেবে ঢাকায় কর্মরত রয়েছেন। এছাড়া তিনি জাতীয় দৈনিক জনতার সংবাদ পত্রিকার জামালপুর, বাংলা টিভি, জাতীয় দৈনিক সন্ধা বানীও দৈনিক আলোচিত জামালপুর পত্রিকায় সরিষাবাড়ী প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত ছিলেন।
জানা গেছে, সাংবাদিক মাসুদুর রহমান ২০১৮ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর কয়েকটি অনলাইন পত্রিকা থেকে “সরিষাবাড়ীতে লক্ষাধিক টাকায় থানা থেকে মুক্তি পেল সড়ক দুর্ঘটনায় আটককৃত ৪ জন” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করেছিল। সংবাদে বলা হয়েছিল মাদারগঞ্জ উপজেলার পাঠাদহ গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে মামুন মিয়া, রফিকুল ইসলামের ছেলে মেহেদী, সুরুজ মিয়ার ছেলে মারুফ, কয়ড়া বাজার এলাকার মোয়াজ্জেম হোসেনের ছেলে রাজ্জাককে আটক করে ১ লক্ষ ৭০ হাজার টাকায় গভীর রাতে গোপনে আপোষ মীমাংসা হয়ে উৎকোচ গ্রহণ করে ছেড়ে দেয় সরিষাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজেদুর রহমান। সংবাদ প্রকাশের পর ২০১৮ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর রাতে তাকে এএসআই আনসার আলী মুঠোফোনে ধানাটা ব্রীজে আসতে বলে। তিনি তার কথামত সেখানে আসলে এসআই ইমান আলী, এসআই আরিফুল ইসলাম, এসআই সাইফুল ইসলাম, এএসআই শাহাদৎ, এএসআই ফরহাদ সহ ২০ পুলিশ সদস্য তাকে ওসি সাহেব ডেকেছে বলে থানায় নিয়ে আসে। তার বিরুদ্ধে চোলাই মদ পান করেছে বলে এস আই ঈমান আলী বাদী হয়ে সরিষাবাড়ি থানায় একটি মামলা দায়ের করে। যার মামলা নং-২৫ তারিখ ২৭-৯-২০১৮ ইং । আদালতে প্রেরণের সময় ওসি তাকে আরো বিভিন্ন মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়ার হুমকি প্রদান করেন।
এ মামলা নিয়ে দীর্ঘদিন যাবত সাংবাদিক মাসুদুর রহমান আদালতে আইনগতভাবে লড়াই করেন। অবশেষে মামলায় সাংবাদিক মাসুদুর রহমান নির্দোষ প্রমানিত হওয়ায় গতকাল সোমবার জামালপুর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এর ৪র্থ আদালতের বিচারিক হাকিম সোলায়মান কবীর তাকে মামলা থেকে অব্যাহতি প্রদান করেন ।
এ বিষয়ে মামলার বিবাদী পক্ষের আইনজীবি আব্দুর রউফ গফুর জানান- প্রায় ১ বছর ৪ মাস পর মামলাটি পরিচালনা করে স্বাক্ষ গ্রহণ শেষে যুক্তি তর্ক অনুষ্ঠিত হয় । বাদী পক্ষ সরিষাবাড়ী থানা পুলিশ মামলাটি প্রমাণ করতে ব্যর্থ হওয়ায় মাননীয় বিচারক তাকে বেকসুর খালাস প্রদান করেন।
এ রায়ে সরিষাবাড়ীর সকল কর্মরত সাংবাদিকসহ এলাকার স্থানীয় জনগণ আনন্দিত হয়ে আরামনগর বাজার ট্রাক সমিতির মোড় এলাকায় মিষ্টি বিতরন করেন। এছাড়া পুলিশ এভাবে আরো কোনো সাংবাদিককে যাতে হয়রানি না করে সে বিষয়ে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করেন স্থানীয়রা।