ঠাকুরগাঁওয়ে  ইউপি সদস্য বৃদ্ধকে মারপিটের অভিযোগ

0
28
রেজাউল ইসলাম মাসুদ, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃ ঠাকুরগাঁও রুহিয়া থানার ২০ নং রুহিয়া পশ্চিম ইউনিয়ন পরিষদের সামনে দোকানে বসে থাকা ইসলাম উদ্দিন (৬৪) নামের এক বৃদ্ধকে মারপিটের অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় ইউপি সদস্যর বিরুদ্ধে।
জানা যায়, গত ২৮ এপ্রিল বুধবার রাত ৮ টার সময় ইউনিয়ন পরিষদের সামনে এক দোকানে বসে ৬ নং ওয়ার্ড বাসিন্দা  ইসলাম উদ্দিন মনের আবেগে বলেন, আমি একজন হত দরিদ্র ও গরীব অসহায় মানুষ অথচ্য আমি সরকারি কোন ত্রাণ সামগ্রী পাইনা,  একটা বয়স্ক ভাতা পাইছিলাম সেটাও আবার নিয়ে নিছে, তাহলে কি সরকার কার জন্য ত্রাণ সামগ্রী দেয়। এই কথা গ্রাম পুলিশ বলাই চন্দ্র শুনে ইউপি সদস্য বিশ্বনাথকে ফোনে ডাকে, এবং সঙ্গে সঙ্গে এসে বৃদ্ধা ইসলাম উদ্দিনকে এলোপাতাড়ি মারপিট করে। বৃদ্ধ ইসলাম উদ্দিনের ছেলে মোস্তফা এগিয়ে আসলে তাকেও গ্রাম পুলিশ মারপিট করে।
প্রতক্ষদোষী মরজিনা বলেন, ইসলাম উদ্দিন দোকানে বসে ছিল কিন্তু একটু পরে হঠাৎ করে বিশ্বনাথ ( মেম্বার ) এসে তাকে মারপিট শুরু করে।
এ বিষয়ে ভুক্তভোগী ইসলাম উদ্দিন বলেন, আমি দোকানে বসে মনের আবেগে বিশ্বনাথ ( মেম্বার ) কে কিছু গালি গালাজ করছি কিন্তু তখন মেম্বার উপস্থিত ছিলেন না। ঘটনা স্থলে গ্রাম পুলিশ বলাই চন্দ্র শুনে ইউপি সদস্য বিশ্বনাথ কে ফোন করে ডাকে সঙ্গে সঙ্গে ইউপি সদস্য এসে আমাকে এলোপাতাড়ি মারপিট করে এবং কি মারতে মারতে আমাকে মাটিতে ফেলে দেয়। আমার ছেলে মোস্তফা এগিয়ে আসলে তাকেও গ্রাম পুলিশ মারপিট করে।
গ্রাম পুলিশ বলাই চন্দ্র বলেন, বিশ্বনাথ ( মেম্বার ) ও ইসলাম উদ্দিন মারামারি করার সময় আমি ছাড়ানোর চেষ্টা করি এতে মোস্তফাকে ধাক্কা লাগে।
ইউপি সদস্য বিশ্বনাথ বলেন, ইসলাম উদ্দিন মেম্বার ও চেয়ারম্যান কে নিয়ে গালিগালাজ করে এ কথা শুনে গ্রাম পুলিশ বলাই চন্দ্র আমাকে বলে তখন আমি চেয়ারম্যান কে বলি, চেয়ারম্যান অনিল চন্দ্র সেন আমাকে বলে দুই চারটা চড় থাপ্পড় দিয়ে দাও, তখন আমি ইসলাম উদ্দিনকে দুই তিনটা চড় থাপ্পড় মারছি।
ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান অনিল কুমার সেন এর সাথে যোগাযোগ করা হলে, তিনি বলেন, বিষয় টা আমি শুনেছি। বিশ্বনাথ ( মেম্বার ) কে মারার অনুমতি সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি কেনো বিশ্বনাথ ( মেম্বার ) কে মারতে বলব আমি তো মেম্বার কে মারতে বলিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here