চরফ্যাশন উপজেলার দক্ষিন আইচা থানায় ৩ মেম্বারের বিরুদ্ধে জেলেদের চাল জালিয়াতির অভিযোগ চেয়ারম্যানের

0
473
স্টাফ রিপোর্টার : ভোলা চরফ্যাসন উপজেলার দক্ষিণ আইচা থানা ৯নং চরমানিকা  ইউনিয়নে জেলেদের জন্য বরাদ্দকৃত চাল সঠিকভাবে বিতরণ না করে আত্মসাৎ করেছে বলে মেম্বারদের  বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন স্থানীয় চেয়ারম্যান ।
অভিযোগের ভিত্তিতে সরেজমিন ইউনিয়ন পরিষদে গিয়ে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত  হওয়া যায় তখন প্রর্যন্ত ৯ নং চরমানিকা  ইউনিয়ন পরিষদের খাদ্য গোডাউনটি তালাবদ্ধ করে রাখেন চেয়ারম্যান। বুধবার (৬ মে) এই অভিযোগ পাওয়া যায় ।
৯ নং চরমানিকা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান   আলহাজ্ব সফিউলাহ হাওলাদার বলেন, ৯ নং চরমানিকা ইউনিয়নের (১৬৮৫) জন জেলেদের জন্য চাল বরাদ্দ করা হয়।তাঁর মধ্যে(৯৪৪) জন নিবন্ধন কৃত জেলেকে চাল দেওয়া হয়, কিন্তু তাঁর মধ্যে ৮ ও ৯ নং মহিলা পুরুষ ইউপি সদস্য,  মৃত্যু ব্যক্তি এবং বাহিরের কিছু জেলাকে ভূয়া কার্ড দিয়ে  চাল দেওয়া হয়।ইউপি সদস্য মন্নান ও খোকন এবং কুলছুম বেগম। কিছু কার্ডধারী জেলেদেরকে এ ভাবেই চাল  দেন স্থানীয় ৩ ইউপি সদস্যরা ।
সবশেষ বুধবার দুপুর ৩ টায় ৯ নং চরমানিকা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান  আলহাজ্ব সফিউলাহ হাওলার নিজে কিছু জেলেদের কার্ড চেক করে দেখেন সঠিক কার্ড দারী একজন নয় জেলেও চাল পান নি ।এ বিষয় স্থানীয় ৩ মেম্বার কে জিজ্ঞেস করলে তাঁরা কিছু না বলে চলে যান। সেসময় তার ইউপি সদস্যদের মধ্যে উতলা সৃষ্টি হয়।এ সময় ৩ মেম্বারের কাছে কোন জবাব  মেলেনি।
এবিষয়ে ইউপি সচিব সিদ্দিক বলেন, চাল বিতরণের দায়িত্ব হলো চেয়ারম্যান মেম্বারদের। আমি তাদের নির্দেশ মোতাবেক কাজ করি। তাছাড়া আজকে ইউনিয়নে চাল বিতরণ করার সময় চেয়ারম্যান কার্ড চেক করার সময় কিছু লোকের মাস্টার রুলে নাম নাই তাদেরকে ৩ মেম্বার মৃত্যু জেলেদের এবং জেলে না থাকা স্বর্থে ও তাদের কে স্লীপদেন মেম্বাররা।
তবে ইউপি চেয়ারম্যান জানান, জেলেদেরকে ভূয়া নামদারী উদ্ধৃর কৃত কার্ড তার কাছে আছে। ওই উদ্ধৃত কার্ড মেম্বাররা নিতে চাইলে স্থানীয় লোকদের কে দেখাই এবং তাঁরা সবাই ক্ষুব্ধ হয়।
ভূয়া কার্ডদারীরা হলেন,মাস্টার রুল সিরিয়াল নং (১৭০)নিবন্ধন নং (১০৭১)
ভূয়া জাহাঙ্গীর, পিতাঃ জালাল হাং(মাঃ১৭৮),(নিঃ০৩৯০)বাচ্চু পিতাঃমৃত্য আব্দুল আজিজ আমেন,(মাঃ১৮১) (নিঃ০৬০৪)নাদিম পিতাঃখোরশেদ আলম(মাঃ১৮৫)(নিং০৫৫০)নুর হোসেন আখন পিতা জালাল উদ্দিন আখন(মাঃ২২৭)(নিঃ৩২৩৬) আবুল কালাম পিতা মোঃ হাওলাদার। আরও মাসটার রুল নং (৬১০,৫৬৯,৬২৬,৬০৭,৬৩০,৬৩১,২৩১,১৩১,২২৮,)এরা সবাই ভূয়া।
এ বিষয় চরফ্যাশন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিন এর  সাথে আলাপ করলে তিনি জানান তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনআনুক ব্যবস্তা গ্রহন করা হব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here