সৌন্দর্যের লীলাভূমি নাগরপুর উপেন্দ্র সরোবর

0
83
মোঃ আমজাদ হোসেন রতন, নাগরপুর(টাংগাইল)প্রতিনিধি: কথিত আছে, কোন এক জ্যোৎনা রাতে প্রজাদরদী জমিদার রায়বাহাদুর তার সঙ্গীদের নিয়ে বৈঠকখানার বাহিরে প্রাণভরে জ্যোৎনা উপভোগ করতে ছিলেন। এমন সময় দেখতে পান অদূরে বিল থেকে কতিপয় মহিলা কলসি ভরে জল নিচ্ছে। তিনি দৃশ্যটি দেখে কৌতুহল বসত খবর নিয়ে জানলেন, অনেকেই সুপ্রিয় পানির অভাবে রাতে বিল থেকে খাবার পানি সংগ্রহ করে ।
বিষয়টি দেখে তার মনে খুব কষ্ট লাগে এবং প্রজাদের এই অমানবিক কষ্ট মুছনের লক্ষ্যে জমিদার রায়বাহাদুর পরের বছরই ১৩৪১ সালে বিহার থেকে দিঘি খনন বিশেষজ্ঞ এনে মোট ১১.২৬ একর জায়গায় সুদৃশ্য এই দিঘি খনন করেন। জনগনের সুবিধার্থে দিঘির চার দিকে সুপ্রস্থত ১২টি ঘাটলা এবং এখানে সারা বছর স্বচ্ছ সুপ্রিয় পানি নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ৬টি সু-গভীর ইন্দারা ( কুয়া) খনন করেন। এ ছাড়া সৌন্দর্য্য বৃদ্ধির জন্যে দিঘির চারপাশে লাগানো হয় সুদৃশ্য খেজুর গাছ। উপেন্দ্র সরোবরে ১২টি ঘাটলা থাকায় স্থানীয় ভাবে এটি ১২ ঘাটলা দিঘি নামে পরিচিত।
প্রতিদিন এখানে ছুটে আসেন টাংগাইল জেলা সহ মানিকগঞ্জ ও সিরাজগঞ্জের প্রত্যন্ত অঞ্চল পেরিয়ে বিভিন্ন জেলার ভ্রমন পিপাসুরা। নাগরপুর জমিদারদের অন্যান্য স্থাপত্যকীর্তি অপরুপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য মন্ডিত কাঠুরি শিব মন্দিরের পাশে দৃষ্টিনন্দন উপেন্দ্র সরোবরটি এ উপজেলা বাসির প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগের একমাত্র বিনোদন কেন্দ্র। এ করণে প্রতিদিন সব বয়সের হাজারো মানুষ একটু স্বস্তি পেতে ছুটে আসেন, ছুটে আসেন মৎস্য শিকারিরাও। ছুটির দিন সহ- বিশেষ দিন গুলিতে সরোবর পরিনত হয় শিশু-কিশোর ও তরুন তরুনিদের মিলন মেলায়।
সরোবরটি উন্নয়ন সম্পর্কে নাগরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ ফয়েজুল ইসলাম জানান, পর্যটন কর্পোরেশন এই সরোবরটিকে পর্যটন কেন্দ্র হিসাবে ১৭ জুলাই ২০১৩ ইং গেজেট প্রকাশ করে। সরোবরটি উন্নয়ন ও রক্ষনাবেক্ষণের মূল দায়িত্ব এখন বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের। কিন্তু এখন পর্যন্ত পর্যটন কর্পোরেশন উন্নয়ন মুলক কোন কাজ শুরু না করায় সরোবরটি জরাজীর্ন হয়ে পড়েছে। তাই তিনি উর্দ্বতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি ও হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
সরোবরটির চতুর পাশে (পাড়) মাঝে মধ্যে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে যাহা দর্শনার্থীদের প্রতিনিয়ত বিপদে পড়তে হচ্ছে। ১২টি ঘাটলার মধ্যে প্রায় গুলি ভাংগা ও জরাজীর্ন হয়ে পড়েছে। পার ঘেষে রয়েছে অনেক আগাছা যাহা দিঘিটির সৌন্দর্য বিনষ্ট করছে।
এলাকা বাসীর দাবি সরকার দ্রুততার সাথে সরোবরটির সৌন্দর্য্য রক্ষায় কার্যকরী ভুমিকা পালন করবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here